আজ ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ



প্রবাসীদের প্রতি প্রধানমন্ত্রী -দেশে বিনিয়োগ করুন

আমেরিকায় বসবাসকারী প্রবাসী বাংলাদেশিদের দেশে বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী শুক্রবার প্রবাসীদের দেওয়া এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এই আহ্বান জানান।

জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে ভাষণ দেওয়ার পর রাতে নিউইয়র্কের ম্যারিয়ট হোটেলে এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ। প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হন।শেখ হাসিনা বলেন, আমি একটা কথা বলব, আমাদের প্রবাসী যারা তারা কিন্তু বাংলাদেশে এখন বিনিয়োগ করতে পারেন। ‘শুধু আমেরিকাই করবে তা না, আমাদের প্রবাসী আমেরিকানরা যতদূর পারেন, বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে পারেন।’

তিনি বলেন, বিনিয়োগকে উৎসাহিত করতে সরকার বাংলাদেশে নানা ধরনের সুযোগ-সুবিধা করে দিচ্ছে।

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে দেশের অর্থনীতি, মানুষের জীবন ও জীবিকার গতি সচল রাখতে সরকারের নেয়া নানা পদক্ষেপও প্রবাসীদের জানান শেখ হাসিনা।

বক্তব্যে দেশের গণমাধ্যম নিয়েও কথা বলেন শেখ হাসিনা। গণমাধ্যমের আরও দায়িত্বশীল ভূমিকা আশা করেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘পত্রিকা শুধু নেতিবাচক কথা লিখবে, আর ভালো কথা লিখবে না, সেটা তো হয় না। পত্রিকা অপবাদ ছড়াবে শুধু, আর কনস্ট্রাকটিভ কথা বা যেটা দেশের উন্নতি বা দেশের জন্য ভালো হবে, সেগুলো বলবে না, এটা তো হতে পারে না। কাজেই দায়িত্বশীলতাটা সবদিক থেকে সমান থাকা দরকার।‘মিথ্যা অপবাদ দিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত যেন না করা না হয়, সেদিকটাও দেখতে হবে। সেই দায়িত্বশীল ভূমিকাটা পালন করতে হবে।’

৭৫ পরবর্তী দেশের রাজনৈতিক বাস্তবতার চিত্রও তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। শোনালেন, ৬ বছরের শরণার্থী জীবন ছেড়ে ঝুঁকি নিয়েও তার দেশে ফিরে আসার গল্প।

বঙ্গবন্ধুর জ্যেষ্ঠ কন্যা বলেন, ‘ওই অবস্থার ভেতরেই কিন্তু আমি বাংলাদেশে ফিরে আসি। আমি জানতাম, আমি যখন ফিরব আমাকে যেকোনো সময় হয়তো আমার ভাগ্যে একইরকম ঘটনা ঘটতে পারে। যেকোনো সময় মৃত্যু হতে পারেনি। সেজন্য কিন্তু পিছিয়েও যায়নি, থেমেও থাকিনি। সেটা আমি চিন্তাও করি না।’

ন্যায় আর সত্যের কথা বললে, জীবন ঝুঁকিপূর্ণ হবে বলেই মানেন শেখ হাসিনা। বলেন, ‘সেজন্য সত্য কথা বলব না, আর ন্যায়সঙ্গত কথা বলব না-এটা তো হয় না। কাজেই আমি বলে যাচ্ছি। বার বার গেরিলা হামলা, গুলির মুখোমুখি হতে হয়েছে, কারাগারে বন্দি হতে হয়েছে, সেগুলো জানি আমি। জেনেই আমার পথ চলা।’

বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে কেউ যেন কোনোদিন ছিনিমিনি খেলতে না পারে সেদিকেও সজাগ থাকতে সবার প্রতি আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ