আজ ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ :

মুন্সীগঞ্জে গ্রাম্য সালিশে বেদে সম্প্রদায়ের ৯ যুবককে জুতাপেটা ২ লাখ টাকা জরিমানার অভিযোগ

 

স্টাফ রিপোর্টার:মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের মৌছামান্দ্রা গ্রামের বেদে সম্প্রদায়ের ৯ যুবককে জুতাপেটা এবং ২ লাখ টাকা জরিমানা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।  শুক্রবার দুপুর সাড়ে ১২টায় লৌহজংয়ের মৌছামান্দ্রা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত একটি গ্রাম্য সালিসে এ বিচার করেন হলদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. মোজাম্মেল হক ও কুমারভোগ ইউপি চেয়ারম্যান মো. লুৎফর রহমান তালুকদার।

 

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গত ৯ জানুয়ারি মৌছামান্দ্রা গ্রামের অপু ভুঁইয়ার বাড়িতে প্রবেশ করে তার একটি কবুতর শিকার করে বেদে সম্প্রদায়ের কয়েকজন যুবক। শিকারে বাধা দিলে উভয়পক্ষের মধ্যে দ্বন্দ্ব বাধে। পরদিন ১০ জানুয়ারি ৫০-৬০ জন বেদে সম্প্রদায়ের যুবক বাড়িতে প্রবেশ করে অপু ও তার মায়ের উপর হামলা চালায়। ঐদিন এ ঘটনায় ১০ জন বেদেকে আসামি করে মামলা করেন ভুক্তভোগী অপু। এ ঘটনায় আজ শুক্রবার দুপুরে উভয় পক্ষের উপস্থিতিতে গ্রাম্য সালিশ বসে বিচার করা হয়।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওতে দেখা যায়, গ্রাম্য সালিসে বিচারের নানা সিদ্ধান্ত গ্রামবাসীর কাছে বলছিলেন ইউপি চেয়ারম্যান মো. লুৎফর রহমান। তিনি বলেন, ‘বেদে সম্প্রদায়ের কেউ কোন বাড়ির পুকুরে মাছ শিকার করলে দুই হাজার টাকা জরিমানা করা হবে। পাখি শিকার করা যাবে না। বিনা দাওয়াতে কারও বাড়ির অনুষ্ঠানে উপস্থিত হওয়া যাবেনা, গাছের ডালা ভাঙ্গা যাবে না। জমি দখল করা যাবে না। শিমুলিয়া ফেরিঘাটে  যাওয়া যাবে না এবং গ্রামের ভেতর ঢুকে সাপের খেলা দেখানো যাবে না। বেদে সম্প্রদায়ের পক্ষের মাদবরদের উদ্দেশ্যে করে সম্প্রদায়ের যুবকদের শাসন করার কথা বলেন ইউপি চেয়ারম্যান। এরপর মাদবররা জুতা হাতে নিয়ে জুতাপেটা করেন মামলায় অভিযুক্ত বেদে যুবকদের। পাশাপাশি ২ লাখ টাকা জরিমানা করার কথা বলেন।

সালিশে উপস্থিত থাকা বেদে সম্প্রদায়ের পক্ষের সরদার মো. নজরুল ইসলাম জানান, মারামারির ঘটনায় বেদে সম্প্রদায়ের ৯ যুবককে জুতাপেটা এবং ২ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। লৌহজং উপজেলার কুমারভোগ ও হলদিয়া ইউনিয়নের দুই ইউপি চেয়ারম্যানের নির্দেশে জুতাপেটা ও জরিমানা করা হয়। অভিযুক্তরা তাদের অপরাধ স্বীকার করার পরও তাদের বিচার করা হয়েছে। বেদে সম্প্রদায় হওয়ার কারণে তাদেরকে ছাড় দেওয়ার জন্য বলেছিলাম। কিন্তু তারা কোনো ছাড় দেয়নি। জরিমানার টাকা সংগ্রহ করে আগামীকাল শনিবার দেওয়া হবে। জরিমানার টাকা দেওয়ার সামর্থ্য নেই এরজন্য ধারদেনা করে দিতে হবে ভুক্তভোগীদের। টাকা না দিলে মামলা প্রত্যাহার হবে না। অভিযুক্তদের সবার বয়স ১৭-২১ বছর হবে। এ বিচরের  আয়োজন করেছে দুই ইউপি চেয়ারম্যান।

সালিশে উপস্থিত হলদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. মোজাম্মেল হক জানান, বেদে সম্প্রদায়ের সদস্যদের হামলায় একজন নারী ও পুরুষ আহতের ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়। তারপর বেদে সম্প্রদায়ের লোকজন মামলা থেকে রেহাই পেতে আমার কাছে আসে। উভয়পক্ষের উপস্থিতিতে বিচারের মাধ্যমে সমঝোতা করার অনুরোধ করে। বিচারে ২ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এতে বাদীপক্ষ মামলা প্রত্যাহার করে নেবে। তবে জুতাপেটার কোনক সিদ্ধান্ত বিচারে নেওয়া হয়নি বলে দাবি করেন তিনি।

 

থানায় একটি মামলার মাধ্যমে আইনি প্রক্রিয়া চলমান থাকলেও গ্রাম্য সালিশের মাধ্যমে বিচার করা যথাযথ হয়েছি কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি।

সালিশে উপস্থিত থাকা কুমারভোগ ইউপি চেয়ারম্যান মো: লুৎফর রহমান তালুকদার বলেন, ‘জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে মিমাংসা চেয়েছিল ভুক্তভোগী পরিবার ও বেদে সম্প্রদায়। তাই উভয় পক্ষের লোকজনদের উপস্থিতিতেই বিচারকার্য সম্পন্ন হয়। ভুক্তভোগী পরিবারের বাড়িঘর ভাঙচুর ও চিকিৎসা খরচের জন্য জরিমানা করা হয়েছে। এ বিচারের রায় দুই পক্ষ মেনে নিয়েছে। বেদে সম্প্রদায়ের মাদবররাই ৯জনকে জুতাপেটা করেছে।’

দেশের প্রচলিত আইনের বাইরে গিয়ে বিচার করার ব্যাপারে তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

 

মামলার বাদী অপু ভূঁইয়া বলেন, ‘গত ৯ জানুয়ারি বেদে সম্প্রদায়ের যুবকরা বাড়িতে এসে একটি কবুতর শিকার করে। সেসময় বাধা দিলে তারা হুমকি দেয়। পরদিন ১০ জানুয়ারি ৫০-৬০জন বেদে সম্প্রদায়ের যুবক বাড়িতে প্রবেশ করে অতর্কিত হামলা চালায়। এতে আমি ও আমার মা গুরুতর আহত হয়েছি। এ ঘটনায় দুই ইউপি চেয়ারম্যান বিচার করে তাদেরকে শাস্তি দিয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সালিশি বৈঠকে উপস্থিত মাদবররা জুতা পেটা করেছে। ২ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে যা চেয়ারম্যানের মাধ্যমে আমার কাছে আসবে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ বিচারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সেখানে যে শাস্তি দেওয়া হয়েছে তা মেনে নিয়েছি।’

মুন্সীগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুমন দেব বলেন, ‘গ্রাম্য সালিসের মাধ্যমে চলমান মামলায় কাউকে জুতাপেটা ও জরিমানা করা যাবে না।

এটি আইনের ললঙ্ঘন। এই বিষয়ে জেনে বিস্তারিত খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ :