আজ ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ :

মুন্সীগঞ্জে জেলা পরিষদ নির্বাচনে নিছিদ্র নিরাপত্তায় বিজিবি মোতায়েন, টাকার ছড়াছড়ির গুঞ্জন

 

স্টাফ রিপোর্টার : মুন্সীগঞ্জ জেলা পরিষদের ভোট গ্রহণ আগামীকাল সোমবার। জেলার ৬ উপজেলা পরিষদের ছয় কেন্দ্রে এই ভোট গ্রহণ ঘিরে নিছিদ্র নিরাপত্তা বলয় তৈরিতে মোতায়েন করা হয়েছে বিজিবি। প্রতি কেন্দ্রে একজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে  বিপুল সংখ্যক আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী কাজ করছে। ইভিএম যন্ত্রপাতিসহ ভোটের উপকরণও কেন্দ্রগুলোতে পৌছেগেছে। জেলা পরিষদ নির্বাচনের রির্টার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক কাজী নাহিদ রসুল জানিয়েছেন, ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন। সকাল ৯টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত বিরতিহীন ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। মুন্সীগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে জেলায় মোট ভোটার ৯২২ জনপ্রতিনিধি। এর মধ্যে পুরুষ জনপ্রতিনিধি ৭০৪ ও নারী জনপ্রতিনিধি ২১৮ জন ।

মুন্সীগঞ্জে জেলা পরিষদ নির্বাচনে ৫টি সাধারণ ওয়ার্ডে প্রার্থী ২০ জন এবং ২টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ¦ী ৮ প্রার্থী। অর্থ্যাৎ মোট ৭টি পদের ভোট যুদ্ধে লড়তে যাচ্ছেন ২৮ প্রার্থী। তাই কর্মী সমর্থকদের মধ্যে উচ্ছাসের যেন নেই শেষ। প্রচার-প্রচারনার পর এখন সেই মাহেন্দ্রক্ষণ। তাই শেষ চেষ্টা চালাচ্ছেন প্রার্থীরা।  এদিকে মুন্সীগঞ্জে জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ মোঃ মহিউদ্দিনকে বিনা প্রতিদ্ব›িদ্বতায় নির্বাচিত হয়েছেন। এছাড়া শ্রীনগর উপজেলা (২ নং ওয়ার্ড) থেকে সদস্য পদে এম মাহবুব উল্লাহ কিসমত বিনা প্রতিদ্ব›িদ্বতায় নির্বাচিত হয়েছেন। এই দুই পদে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত ঘোষণা করেছেন জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক কাজী নাহিদ রসুল। তাই ভোট হবে বাকি পাঁচ উপজেলায় একজন করে সদস্যপদে এবং সংরক্ষিত দুই নারী আসনের জন্য দুটি পদে।

টাকার ছড়াছড়ির গুঞ্জন

মুন্সীগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে বিভিন্ন ওয়ার্ডে টাকার ছাড়াছড়ির গুঞ্জন আরও বাড়ছে। শ্রীনগর উপজেলা ব্যতিত বাকি ৫ উপজেলাই এই টাকায় ভোট কেনার গুঞ্জন সর্বত্র। অধিকাংশ প্রার্থীই ভোটারদের নানা কৌশলে টাকা দিচ্ছেন বলে অভিযোগ। তবে অভিযোগ উঠেছে কতিপয় প্রার্থীর বিপুল পরিমান টাকা দেয়া নিয়ে এলাকায় চলছে নানা আলোচনা।

শ্রীনগর উপজেলায় সদস্য পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচন হওয়ায় এখন ভোটারদের কদর কম। শ্রীনগর উপজেলা পরিষদ কেন্দ্রে শুধু নারী ওয়ার্ডের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। সংরক্ষিত ১ নং নারী আসনে ৫ জন প্রার্থী হলেও একজনের অবস্থান অনেক অগ্রগ্রামী তাই এখানে অর্থের লেনদেন কম। মুন্সীগঞ্জ ২ নম্বর সংরক্ষিত নারী আসনে প্রার্থী তিনজন হলেও লড়াই হচ্ছে দ্বিমুখী। এই সংরক্ষিত ওয়ার্ডে একজন নারীর প্রার্থীর বিরুদ্ধে অর্থ প্রদানের অভিযোগ রয়েছে। ১ নং ওয়ার্ড সিরাজদিখান উপজেলায় এক প্রার্থীর বিরুদ্ধে টাকা বিতরণের অভিযোগ বেশি। ৩ নম্বর ওয়ার্ড লৌহজংয়ে দুই প্রার্থীর বিরুদ্ধে বিপুল টাকা বিতরণের অভিযোগ উঠেছে। তবে পদ্মাপারের প্রার্থী বেশি বেশি অর্থ ডালছেন বলে অভিযোগ। ৪ নম্বর ওয়ার্ড টঙ্গীবাড়িতে এক প্রার্থীর বিরুদ্ধে টাকা বিতরণের অভিযোগ । আর ৫ নম্বর ওয়ার্ড মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলায় প্রার্থীদের বিরুদ্ধে টাকা দিয়ে ভোট কেনার অভিযোগ উঠলেও এক প্রার্থী বিপুল পরিমান টাকা বিতরণ করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। আর ৬ নম্বর ওয়ার্ড গজারিয়া উপজেলায় ৩ জন প্রার্থীর মধ্যে একজন প্রার্থীর বিরুদ্ধে টাকা বিতরণের অভিযোগ উঠেছে।  এব্যাপারে জেলা নির্বাচন অফিসার ও সহকারী রির্টানিং অফিসার বলেছেন, নির্বাচন আচরণ বিধি লংঘনরোধে কমিটি কাজ করছে।

 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ :